নারী! আপনি গর্জে উঠুন, প্রতিবাদ করুন

নারীদেরকে উদ্দেশ্য করে বলি, সময় থাকতে যদি এই জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে রুখে না দাঁড়ান, সবচেয়ে বেশি আপনারাই বেশি কষ্টে থাকবেন। অপমান আর অসম্মানের যন্ত্রণায় জ্বলে পুড়ে অঙ্গার হয়ে যাবেন। প্রতিটি মুহূর্ত মৃত্যু কামনা করবেন।

আজকে যারা মডারেট/ আপলোজেটিক মুসলিম আছেন আপনাদের দুঃখের দিন ঘনিয়ে আসছে। এত যত্ন করে যে সাজ সজ্জা করছেন সবকিছু পর্দার আড়ালে ঢাকা পড়ে যাবে। রংবেরঙের জামা কাপড় পরে বন্ধু বান্ধব/ কলেজ /ইউনিভার্সিটি / রাস্তা ঘাট/ শপিং মল এ ঘোরা ঘুরি করেন সেটা বন্ধ হয়ে যাবে। পা থেকে মাথা পর্যন্ত কালো রঙের ঢিলে ঢালা আলখাল্লা তে আবৃত থাকতে হবে আপনাদের সবসময়। আর যারা নাম মাত্র  চুল ঢেকে মুখ খুলে হিজাব এর ফ্যাশন করে বেড়ান , আপনাদের এই অপরূপ সুন্দর মুখশ্রী কালো পর্দার অন্তরালে চির দিনের জন্য হারিয়ে যাবে।

চিন্তা করে দেখুন এত অস্থির ,অসহ্য গরমের মধ্যে সারাক্ষণ এরকম থাকতে আপনাদের কেমন লাগবে? আর যারা মিডিয়াতে আছেন! তাদের কথা ভেবে তো বরই কষ্ট হচ্ছে। না পারবেন মিডিয়াতে কাজ করতে, না পারবেন নিজের ইচ্ছে মতো কাপড় পড়তে। সিনেমা, নাটক, মডেলিং, সকল কিছু চিরতরে বন্ধ হয়ে যাবে আপনাদের জন্য। সেই সাথে লেখাপড়াও বন্ধ হয়ে যাবে সারাজীবনের জন্য। শরিয়া আইনের বদৌলতে সারাজীবনের জন্য কয়েদী হয়ে থাকবেন নিজের ঘরে, নিজের পরিবারে, এমনকি স্বামীর ঘরেও। এমনকি নিজের ইচ্ছার বিরুদ্ধেও শারীরিক সম্পর্কে আবদ্ধ হতে হবে। জীবনটা হয়ে যাবে দুঃসহ দুর্বিষহ। সহ্য করতে পারবেন? আপনার ইচ্ছা, আপনার সমস্যা, আপনার সুখ, আনন্দ, বিনোদন বলতে কিছুই বরাদ্দ থাকবে না আপনার জন্য। ক্যামন লাগবে তখন আপনাদের?

রং বেরঙের, ম্যাচিং করা  বাহারি চুড়ি, শাড়ি, টিপ, গয়না এই সকল কিছু  পরা ছেড়ে কালো কাপড়ের আড়ালে নিজেদেরকে নির্বাসিত হতে হবে সারাজীবনের জন্য। ভেবে দেখুন, পারবেন?  বন্ধ হয়ে যাবে বাঙ্গালির প্রানের উৎসব পহেলা বৈশাখ।

বন্ধুদের সাথে হাতির ঝিল এ ঘুরতে যাওয়া, ফুচকা, চটপটি, আবাহনি মাঠের/ মোহাম্মদ পুরের  চাপ, নীরব হোটেলের বাহারি খাবার, মামা হালিম, স্টার কাবাব, নান্না বিরিয়ানি, বসুন্ধরা সিটির ফুড কোর্ট, ধানমণ্ডি, গুলশান, বনানী, উত্তরার খাবার দোকানের এসকল খাবার খাওয়া  আর আড্ডা দেয়া চিরদিনের মতো বন্ধ হয়ে যাবে। পারবেন সহ্য করতে?

জানি পারবেন না। সহজে এত কিছুর পরিবর্তন আপনারা সহ্য করতে পারবেন না। তাই সময় থাকতে সাবধান হন। এখনও সময় আছে, কঠোর হাতে  ধর্মের নামে এই ধর্ম ব্যাবসার এই সব কর্মকাণ্ড দমন করুন। একটা দেশ ধ্বংস হয়ে যাবে যদি দেশ এভাবেই চলতে থাকে। বহু কষ্টে, বহু ত্যাগে পাওয়া এই সোনার দেশ বাঁচাতে সবাই কঠোর হাতে এই সকল ধর্মীয় গোঁড়ামির শিকড় সমূলে উচ্ছেদ করুন।

Advertisements

One comment

  1. মাগিরা কিসের গর্জাবে? ওদের এভাবেই বোরখার নিচে থাকতে হবে তা আমাদের আল্লাহ বলে দিয়েছেন। তোর এত জ্বলে কেন ছেমড়ি?

    Like

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s